২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার,বিকাল ৩:৪৭

দেশের যেসব এলাকা ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২০

  • শেয়ার করুন

করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে দেশের বেশকিছু এলাকাকে ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৪৫টি এলাকা, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের একাধিক ওয়ার্ড এবং এর বাইরে আরও তিন জেলার বিভিন্ন এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসে প্রতিরোধে গঠিত কেন্দ্রীয় টেকনিক্যাল কমিটির শনিবারের সভায় এসব এলাকা ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।  এই সকল এলাকার জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন এবং পুলিশ সুপার মিলে এসব জোনের মধ্যে সুনির্দিষ্টভাবে লাল এলাকা চিহ্নিত করবেন বলে সভার সিদ্ধান্তে বলা হয়।

জানা গেছে, ঢাকা উত্তর সিটির ১৭টি এবং দক্ষিণ সিটির ২৮টি এলাকা ‘রেড জোন’র তালিকায় আছে। সেই সাথে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকার ১১টি এলাকা রেড জোনের মধ্যে পড়েছে।

এছাড়া ঢাকার বাইরে নরসিংদী, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর জেলার একাধিক উপজেলাকে রেড জোন চিহ্নিত করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সেন্ট্রাল টেকনিক্যাল গ্রুপের সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে বৈঠকের একটি সূত্র জানিয়েছে।
এলাকা ভিত্তিতে যেসব এলাকা রেড জোনে পড়েছে তার তালিকা দেয়া হলো-

ঢাকা উত্তর সিটি:

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে রয়েছে ১৭টি রেড জোন ঘোষিত এলাকা। সেগুলো হলো: বসুন্ধরা, বাড্ডা, ক্যান্টনমেন্ট, মহাখালী, তেজগাঁও, রামপুরা, আফতাবনগর, মোহাম্মদপুর, কল্যাণপুর, গুলশান, মগবাজার, এয়ারপোর্ট, বনশ্রী, রায়েরবাজার, রাজাবাজার, উত্তরা, মিরপুর।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি:

দক্ষিণ সিটিতে রয়েছে ২৮টি রেড জোন এলাকা। এর মধ্যে আছে: যাত্রাবাড়ী, ডেমরা, মুগদা, গেন্ডারিয়া, ধানমন্ডি, জিগাতলা, লালবাগ, আজিমপুর, বাসাবো, শান্তিনগর, পল্টন, কলাবাগান, রমনা, সূত্রাপুর, মালিবাগ, কোতোয়ালি, টিকাটুলি, মিটফোর্ড, শাহজাহানপুর, মতিঝিল, ওয়ারী, খিলগাঁও, পরিবাগ, কদমতলী, সিদ্ধেশ্বরী, লক্ষ্মীবাজার, এলিফ্যান্ট রোড, সেগুনবাগিচা।

চট্টগ্রাম সিটি:

চট্টগ্রাম সিটির রেড জোন চিহ্নিত ১০টি এলাকা হলো- চট্টগ্রাম বন্দরে ৩৭ ও ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড, পতেঙ্গার ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড, পাহাড়তলির ১০ নম্বর ওয়ার্ড, কোতোয়ালির ১৬, ২০, ২১ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড, খুলশীর ১৪ নম্বর ওয়ার্ড, হালিশহর এলাকার ২৬ নম্বর ওয়ার্ড।

দুই সিটির বাইরে আরও তিন জেলা হলো:

ঢাকার বাইরের তিন জেলার মধ্যে গাজীপুরের সব কটি উপজেলাকে রেড জোনের আওতার মধ্যে আনা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার, রূপগঞ্জ, সদর এবং পুরো সিটি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এছাড়া ঢাকার দুই সিটি ও চট্টগ্রামের যেসব এলাকায় প্রতি এক লাখ জনসংখ্যায় ১৪ দিনে ৬০ জন আক্রান্ত হয়েছে সেসব এলাকাকে রেড জোন চিহ্নিত করা হয়েছে। ঢাকার বাইরে এই অনুপাত লাখে ১০। আর নরসিংদীর সদর মডেল থানা, মাধবদী ও পলাশ এলাকা এই তালকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

এদিকে, লকডাউন বাস্তবায়নের জন্য এলাকা সুনির্দিষ্ট করার পরামর্শ উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলামের। তিনি বলেন, কোনো এলাকা যদি রেড জোনের মধ্যে ফেলে তা লকডাউন করতে হয় তবে আমাদের ন্যূনতম সময় দিতে হবে। আমাদের প্রস্তুতির দরকার আছে।

গত ৯ জুন রাত ১২টা থেকে ঢাকা উত্তর সিটির পূর্ব রাজাবাজারে লকডাউন শুরু হয়েছে। এছাড়া গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার তিনটি ওয়ার্ড, মাধবদীর বিরামপুর এলাকা ও পলাশের চরসুন্দর এলাকা এখনও লকডাউন আছে।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন