১৭ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার,বিকাল ৫:০২

শিরোনাম
সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা, স্থগিত বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষাও মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী খুলনা মহানগরীর নতুন রাস্তা, জিরোপয়েন্ট ও শিববাড়ি মোড়ে সড়ক অবরোধ কেএমপি খুলনার অফিসার্স মেসের উদ্বোধন করেন আইজিপি খুলনায় আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত খুলনা জেলা আ’লীগের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত কয়রায় মহসিন রেজা, ডুমুরিয়ায় এজাজ ও পাইকগাছায় আনন্দ চেয়ারম্যান নির্বাচিত খুলনায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন ফেরদৌস আহম্মেদ’র প্রধানমন্ত্রী গরিব-দু:খী মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন করে চলেছেন-কেসিসি মেয়র

প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ‘লাইফ সাপোর্টে’

প্রকাশিত: অক্টোবর ২২, ২০২০

  • শেয়ার করুন

অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের অবস্থার অবনতি হয়েছে।

তিনি এখন ঢাকার আদ-দ্বীন হাসপাতালে ‘লাইফ সাপোর্টে’ রয়েছেন। তার অবস্থা সঙ্কটাপন্ন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের মহাপরিচালক ডা. নাহিদ ইয়াসমিন।

বুধবার রাতে এক ভিডিও বার্তায় এই চিকিৎসক বলেন, “ব্যারিস্টার রফিক-উল হক স্যার হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আজ তার সপ্তম দিন চলছে। গতকাল থেকে তার অবস্থার অবনতি হয়েছে। রাত ১২টার পর থেকে তার অবস্থা খুব জটিল হয়ে গিয়েছিল। ক্রিটিক্যাল অবস্থায় ছিল। হঠাৎ করে স্যার সেপটিক শকে চলে গিয়েছিলেন। প্রেসার কমে গিয়েছিল। অক্সিজের স্যাচুরেশন কমে গিয়েছিল। সাথে সাথে স্যারকে ইনটিউভেশন করে করে ভ্যান্টিলেটরে দেওয়া হয়েছে। স্যার এখন আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে আছেন।”

তিনি বলেন, “স্যারের অবস্থা একটু জটিল। যেহেতু স্যারের ইউরোস্যাপসিস এবং লাংয়ে ইনফেকশন, দুই ধরনের ইনফেকশন ছিল, রক্তশূন্যতা ছিল, স্ট্রোক করেছিলেন, শরীরের অ্যালবুমিন কমে গিয়েছিল, এই সবকিছু মিলিয়ে স্যারের অবস্থা প্রথম দিকে একটু উন্নতি হলেও আবার অবনতি হয়ে গিয়েছে।”

তবে রফিক-উল হক এখনও সাড়া দিচ্ছেন জানিয়ে ডা. নাহিদ বলেন, “স্যার এখনও বেশ কনশাস। রেসপন্স করছেন ভাল। আমরা কথা বললে স্যার ইন্টারেকশন করছেন।

“লাইফ সাপোর্টে দেওয়ার পরে স্যারের অন্যান্য প্যারামিটারগুলো একটু স্বাভাবিক। ব্লাড প্রেশার পালসরেট নরমাল আছে। জ্বর আর আসেনি, তাপমাত্রাও স্বাভাবিক আছে।”

৮৫ বছর বয়সী রফিক-উল হককে গত বৃহস্পতিবার এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. রিচমন্ড রোল্যান্ড গোমেজের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছে।

রফিক-উল হকের আইনজীবী হিসেবে কর্মজীবনের শুরু ১৯৬০ সালে কলকাতা উচ্চ আদালতে।

১৯৯০ সালে বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল করা হয়েছিল তাকে।

সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে আইনজীবী হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক।

ওই সময় তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ অনেক রাজনীতিবিদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টে আইনি লড়াই করেন।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন