১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার,দুপুর ২:১৮

শিরোনাম
কয়রায় মহসিন রেজা, ডুমুরিয়ায় এজাজ ও পাইকগাছায় আনন্দ চেয়ারম্যান নির্বাচিত খুলনায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন ফেরদৌস আহম্মেদ’র প্রধানমন্ত্রী গরিব-দু:খী মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন করে চলেছেন-কেসিসি মেয়র খুলনায় তিনদফা দাবিতে ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীদের কর্মবিরতি পালন দীর্ঘ অপেক্ষার পর রেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হলো মোংলা বন্দর সরকার সবসময় দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে থাকবে-ভূমিমন্ত্রী খুলনায় নতুন ভবনে নতুন আঙ্গিকে গণহত্যা জাদুঘর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারিরিক সম্পর্ক; মোংলা থানার ওসি (তদন্ত) ক্লোজড সুন্দরবনে আগুন, কারণ বের করতে আরও ৭ কার্যদিবস সময় নিলো তদন্ত কমিটি

খুলনায় মায়ের চিকিৎসা ও নিজের জীবনের নিরাপত্তায় প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: জুন ৬, ২০২৪

  • শেয়ার করুন

তথ্য প্রতিবেদক:
জীবনের নিরাপত্তা ও পিতার সম্পত্তি আত্মসাতের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) দুপুর ১ টায় আপন ভাইয়ের বিরুদ্ধে খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন খালিশপুর আবাসিক ১১৭ নম্বর রোডের বি/১৪ এর মৃত ফজলুল হকের মেয়ে কোহিনুর বেগম।
তিনি বলেন, আমার ভাইয়েরা বাবার সম্পত্তি আত্মসাৎ করার জন্য আমাকে হত্যা করার চেষ্টা করেছে। প্রায় ৩০ বছর পূর্বে ভাইদের অত্যাচার সইতে না পেরে ছোট ভাই কাজী মোস্তাফিজুল হক রিপন আত্মহত্যা করে।
শুধু তাই নয়, মা জাকিয়া বেগমের সম্পত্তি আত্মসাৎ এর লক্ষে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে চিকিৎসায় অনিয়ম ও অবহেলা করছেন। আমার ভাই কাজী মাহবুবুল হক খোকন, কাজী মাহফুজুল হক (স্বাধীন), কাজী মঈনুল হক লিটন ও আমার বড় ভাইয়ের স্ত্রী উম্মে সালমা জাহান লুনা সংঘবদ্ধভাবে আমার বাবা চাকুরী থেকে এলপিআর যাবার পরে বাবার উপরেও শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করে ওয়ারিশদের সকল অর্থ এবং তার গ্রামের বাড়ীর যাবতীয় সম্পত্তি জোর করে দখল করে নেয়। মা অসুস্থ জানতে পেরে আমি ঢাকা থেকে জরুরী ভিত্তিতে ভাই কাজী মাহবুবুল হকের ভাড়া বাসায় মাকে দেখতে ও চিকিৎসা করাতে আসি এবং তার যথাযথ চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করি। কিন্তু গত ১৮ মে সকাল অনুমানিক সাড়ে ৯ টার দিকে আমার ভাই কাজী মাহবুবুল হক খোকনের হুকুমে দুই ভাই ও ভাবি আমাকে মারপিট শুরু করে। কাজী মাহফুজুল হক স্বাধীন মায়ের ঘরের আলমারী খুলে (ত্রিশ ভরি) স্বর্ণ ও নগদ দুই লক্ষ টাকা জোর করে নিয়ে যায়। আমাকে বেধড়ক মারপিট করলে আমার ডাক চিৎকারে বুলবুলি বেগম ও জাহানারা বেগম আমাকে উদ্ধার করে। পরে আমাকে স্থানীয় একটি ডিসপেনসারীতে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে। কিন্তু আমার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাত আনুমানিক ১০টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ২১ মে পর্যন্ত চিকিৎসা গ্রহনের পর কিছুটা সুস্থ্য হয়ে খালিশপুর থানায় মামলা করাতে গেলে থানা পুলিশ কোন অভিযোগ নেয়নি।
তিনি এ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে মায়ের চিকিৎসা ও নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন