২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার,সকাল ৬:৩৮

শিরোনাম
খুলনার ৬ টি আসনে জয়ী নৌকার প্রার্থীরা বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তার লক্ষ্যে নৌবাহিনী মোতায়েন ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে এমপি সালাম মুর্শিদীর লোকের, অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভারতীয় ও রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সাথে নৌপ্রধানের সাক্ষাৎ বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ রুহুল আমিন ও বীর বিক্রম শহিদ মহিবুল্লাহর শাহাদত বার্ষিকী পালন রূপসা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে বীর ‍মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান নৌবাহিনীর ৬৭১ জন নবীন নাবিকের শিক্ষা সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত আমরা একবারও বলিনি তফসিল পেছানোর কথা : ইসি আহসান হাবিব শীতকালীন রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করলেন নৌবাহিনী প্রধান

খুলনার মশিয়ালীতে গোলাগুলি ও গণপিটুনিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪, এলাকায় আতঙ্ক

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২০

  • শেয়ার করুন

খুলনার খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ ও গুলি বিনিময়ের ঘটনায় আরো দুই জন নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৪ জনে।

বৃহস্পতিবার রাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় চিকিৎসাধীন সাইফুল ইসলাম (২৭) মারা যায়। এছাড়া ক্ষিপ্ত এলাকাবাসী প্রতিপক্ষের জিহাদ নামের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এর আগে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নজরুল ফকির (৪৫) ও গোলাম রসুলের (৩৫) মৃত্যু হয়। নিহতদের সকলের বাড়ি খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায়। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার কানাই লাল সরকার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকাবাসী জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মশিয়ালী এলাকায় প্রভাবশালী শেখ জাকারিয়া হোসেন এবং তার দুই ভাই জাফরিন ও মিল্টনের বাহিনীর সাথে এলাকার ফকির গংদের এ সংঘর্ষ হয়। অস্ত্রসহ এক সন্ত্রাসীকে আটকের ঘটনায় পরস্পরকে দোষারূপ করে সংঘর্ষে জড়ায় দু’পক্ষ। এক পর্যায়ে ফকির গংরা ওই তিন ভাইয়ের বাড়িতে হামলা চালাতে যায়। এসময় জাকারিয়া বাহিনী গুলি চালালে ফকির গংদের ৪ জন গুলিবিদ্ধ হয়। এরপর দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। রাতে এলাকার মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে লোক জড়ো করে জাকারিয়ার বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন ধরানো হয়। হামলার ঘটনায় নাম উঠে আসা জাকারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক এবং জাফরিন খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সহ-সভাপতি বলে জানা যায়।
এ ঘটনায় খুমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন- মশিয়ালী গ্রামের আফসার শেখ (৬৫), ইব্রাহিম শেখ (২৬), জুয়েল শেখ (৩৫), রানা শেখ (২২), রবি শেখ (৪০) ও শামীম শেখ (২৫)। এরা সকলেই একই পরিবারের সদস্য। খানজাহান আলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন