২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার,সকাল ৭:৩০

শিরোনাম
কয়রায় মহসিন রেজা, ডুমুরিয়ায় এজাজ ও পাইকগাছায় আনন্দ চেয়ারম্যান নির্বাচিত খুলনায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন ফেরদৌস আহম্মেদ’র প্রধানমন্ত্রী গরিব-দু:খী মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন করে চলেছেন-কেসিসি মেয়র খুলনায় তিনদফা দাবিতে ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীদের কর্মবিরতি পালন দীর্ঘ অপেক্ষার পর রেল নেটওয়ার্কে যুক্ত হলো মোংলা বন্দর সরকার সবসময় দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে থাকবে-ভূমিমন্ত্রী খুলনায় নতুন ভবনে নতুন আঙ্গিকে গণহত্যা জাদুঘর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারিরিক সম্পর্ক; মোংলা থানার ওসি (তদন্ত) ক্লোজড সুন্দরবনে আগুন, কারণ বের করতে আরও ৭ কার্যদিবস সময় নিলো তদন্ত কমিটি

খুলনার মশিয়ালীতে গোলাগুলি ও গণপিটুনিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪, এলাকায় আতঙ্ক

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২০

  • শেয়ার করুন

খুলনার খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ ও গুলি বিনিময়ের ঘটনায় আরো দুই জন নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৪ জনে।

বৃহস্পতিবার রাতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় চিকিৎসাধীন সাইফুল ইসলাম (২৭) মারা যায়। এছাড়া ক্ষিপ্ত এলাকাবাসী প্রতিপক্ষের জিহাদ নামের এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এর আগে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নজরুল ফকির (৪৫) ও গোলাম রসুলের (৩৫) মৃত্যু হয়। নিহতদের সকলের বাড়ি খানজাহান আলী থানার মশিয়ালী এলাকায়। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার কানাই লাল সরকার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এলাকাবাসী জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। মশিয়ালী এলাকায় প্রভাবশালী শেখ জাকারিয়া হোসেন এবং তার দুই ভাই জাফরিন ও মিল্টনের বাহিনীর সাথে এলাকার ফকির গংদের এ সংঘর্ষ হয়। অস্ত্রসহ এক সন্ত্রাসীকে আটকের ঘটনায় পরস্পরকে দোষারূপ করে সংঘর্ষে জড়ায় দু’পক্ষ। এক পর্যায়ে ফকির গংরা ওই তিন ভাইয়ের বাড়িতে হামলা চালাতে যায়। এসময় জাকারিয়া বাহিনী গুলি চালালে ফকির গংদের ৪ জন গুলিবিদ্ধ হয়। এরপর দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। রাতে এলাকার মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে লোক জড়ো করে জাকারিয়ার বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আগুন ধরানো হয়। হামলার ঘটনায় নাম উঠে আসা জাকারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক এবং জাফরিন খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সহ-সভাপতি বলে জানা যায়।
এ ঘটনায় খুমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন- মশিয়ালী গ্রামের আফসার শেখ (৬৫), ইব্রাহিম শেখ (২৬), জুয়েল শেখ (৩৫), রানা শেখ (২২), রবি শেখ (৪০) ও শামীম শেখ (২৫)। এরা সকলেই একই পরিবারের সদস্য। খানজাহান আলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন