November 14, 2018, 12:08 pm

পহেলা বৈশাখ : চট্টগ্রামে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা ইলিশ

অনলাইন ডেস্কঃ দুয়ারে কড়া নাড়ছে পহেলা বৈশাখ। বাঙালীয়ানার ষোলআনা পূর্ণ করতে পহেলা বৈশাখ মানেই পান্তা ইলিশ। পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে চট্টগ্রামে ইতোমধ্যেই ইলিশ বিকিকিনি শুরু হয়েছে।

তবে এসব ইলিশের অধিকাংশই ৯ সেন্টিমিটার থেকেও ছোট। দুর্বল মনিটরিং আর পহেলা বৈশাখ, এ দুই মোক্ষম সুযোগ কাজে লাগিয়ে মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন জায়গায় প্রকাশ্যে বিক্রি করছে জাটকা ইলিশ।

বৃহস্পতিবার (৬ এপ্রিল) রাতে নগরীর মুরাদপুর, বহদ্দারহাট ও ফিসারিঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা ইলিশ। ঝুড়িতে করে পাঁচ থেকে সাতটি জাটকা ইলিশের দাম হাঁকা হচ্ছে ১২ থেকে ১৫শ’ টাকা। যদিও এক থেকে দেড় হাজার টাকার কমে কোনও বড় ইলিশ মাছ নেই। এগুলোরও সাইজ হবে সর্বোচ্চ ৫০০-৬০০ গ্রাম।

মুরাদপুর আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভারের নিচে ৪০০-৫০০ গ্রাম ওজনের প্রতিজোড়া ইলিশ ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। তবে এর নিচে জাটকা ইলিশ হলে ওই টাকাতেই মিলছে পাঁচ থেকে সাতটি।

জাটকা মাছ বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের প্রায় সবাই মৌসুমী মাছ বিক্রেতা। পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে জাটকা ইলিশ বিক্রিতে নেমেছেন। তাদেরই একজন জসিম।

জাগো নিউজকে তিনি বলেন, ‘ফিসারিঘাট থেকে প্রতিকেজি ছোট ইলিশ (জাটকা) ১৬০ টাকা করে কিনেছি। সাইজ হিসেবে মিলিয়ে পাঁচ থেকে সাতটি ইলিশ একসঙ্গে ১২শ’ থেকে ১৫শ’ টাকায় বিক্রি করছি’।

media

বড় ইলিশ বিক্রি না করে জাটকা বিক্রির কারণ জানাতে গিয়ে মুনাফ নামে আরেক বিক্রেতা জাগো নিউজকে বলেন, ‘বড় ইলিশের দাম বেশি, সাধারণ মানুষের কেনার সামর্থ নাই। তাই জাটকা নিয়ে আসা। মুরাদপুর-বহদ্দারহাটের মত জংশনে বাড়ি ফেরা মানুষ এই মাছের প্রতি বেশ আগ্রহ দেখান’।

এদিকে বাজার ছাড়াও ফুটপাতে দেদারছে জাটকা ইলিশ বিক্রি হলেও কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্যও জেলা মৎস্য বিভাগের তেমন কোনো তৎপরতা চোখে পড়ছে না চট্টগ্রামে।

এ বিষয়ে জানতে চট্টগ্রামের মৎস্য কর্মকর্তার মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সংযোগ স্থাপন করা যায়নি।

ফিসারিঘাট থেকে বহদ্দারহাটে মাছ বিক্রি করতে আসা ব্যবসায়ী ওমর ফারুক বলেন, ‘আমি জানি এটা জাটকা। সন্ধ্যায় প্রশাসন কঠোর থাকে না বলে বিক্রি করছি। প্রতি কেজিতে ৩/৪টা ওঠে। দাম সাড়ে ৮শ’ টাকা। আপনি ছবি তুললেন কিন্তু প্রশাসনের কেউ আসে না। এর বেশি কিছু বলা যাবে না’।

এদিকে, পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে এখন থেকেই ইলিশের মজুত বাড়াচ্ছেন চট্টগ্রামের কালুরঘাট, সদরঘাট ও ফিসরিঘাটের মাছ ব্যবসায়ীরা। তীরে ব্যবসায়ীদের কাছে জাটকার চাহিদা থাকায় জেলেরাও ব্যস্ত জাটকা নিধনে। সরকারের পক্ষ থেকে নভেম্বর থেকে জুন পর্যন্ত জাটকা নিধনে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও অতিরিক্ত মুনাফার আশায় অসাধু ব্যবসায়ীরা জেলেদের দাদন দিয়ে জাটকা সংগ্রহ করছেন।

উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল চট্টগ্রামের কর্ণফুলী থানার পুরাতন ব্রিজঘাট এলাকায় একটি নৌকায় তল্লাশি চালিয়ে প্রায় সাড়ে চার হাজার কেজি জাটকা জব্দ করে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড পূর্ব জোন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category