আজ বৃহস্পতিবার, ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সড়ক আইন প্রস্তুতির অভাবে রাজপথে আইনটি কার্যকর হচ্ছে না

তথ্য প্রতিবেদক: গত শুক্রবার থেকে বড় শাস্তির বিধান রেখে নতুন সড়ক পরিবহন আইন চালু হলেও পুলিশের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির অভাবে প্রথম ও দ্বিতীয় দিনে বাস্তবায়ন হয়নি এ আইনটি। নগরীতে ট্রাফিক পুলিশের আলাদা কোনো তৎপরতাও দেখা যায়নি। অল্প কিছুদিন আগে আইনের গেজেট হওয়া এবং প্রস্তুতির অভাবে কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তবে দ্রুতই রাজপথে আইনটি বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানান খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
কেএমপির ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মোঃ সাইফুল হক জানান, খুলনায় এ আইনটি সম্পর্কে সকল চালককে সচেতন করা হচ্ছে। খুব শিগগিরই আইনটি বাস্তবায়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
পুরাতন আইন সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়েছি। আর নতুন আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে অনলাইন মাধ্যমে কাজ করতে কিছুটা সময় লাগবে। আপাতত কিছুদিন আগের মতো সিলিপের মাধ্যমে মামলা দেওয়া হবে। নতুন আইন নিয়ে আমরা ব্যাপক গবেষণা করেছি। আইনটি কোন কৌশলে প্রয়োগ করলে জনগণের কাছে সুবিধা হবে, আমাদের জন্য সুবিধা হবে, পরিবহন মালিক শ্রমিকের জন্য সুবিধা হবে সেটা আমরা এরই মধ্যে বের করেছি। দ্রুতই নতুন আইনের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে নগরীতে ঘুরে দেখা গেছে, নতুন আইন কার্যকর করতে কাগজপত্র ও মামলা করার আপডেটেড পজ মেশিন ছিল না। সম্পূর্ণ প্রস্তুতি না থাকায় দ্বিতীয় দিনেও নতুন আইনের প্রয়োগও করতে পারেনি ট্রাফিক পুলিশ। ফলে পুলিশকে আইন ভঙ্গকারী অনেককেই সতর্ক করে ছেড়ে দিতে দেখা গেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তা জানান, পজ মেশিনের মাধ্যমে মামলার কার্যক্রম সম্পন্ন করা হতো। কিন্তু পজ মেশিনের কাজের আপডেট চলছে। বই মাধ্যমে অর্থাৎ কেস সিলিপের মাধ্যমে আগে মামলা দেওয়া হত। কেস সিলিপের মাধ্যমে মামলা দিতেও কাগজপত্র হাতে এসে পৌঁছায়নি। অল্প সময়ের মধ্যেই পেয়ে যাব। উল্লেখ
২০১৭ সালের ২৭ মার্চ সড়ক সভা কমিটির নতুন আইনের অনুমোদন দেয়। এরপর গত বছরের ৮ অক্টোবর সড়ক পরিবহণ আইন-২০১৮ এর গেজেট জারি করা হলেও তার কার্যকারিতা ঝুলে ছিল। কার্যকর হওয়া নতুন আইনে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালালে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ৬ মাস জেল বা ২৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। এর আগে এ অপরাধের শাস্তি ছিল চার মাসের কারাদণ্ড বা ৫০০ টাকা অর্থদণ্ড। এছাড়া কর্তৃপক্ষ ছাড়া কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বা সমিতি ড্রাইভিং লাইসেন্স তৈরি প্রদান ও নবায়ন করলে শাস্তি দুই বছর। এছাড়া নিবন্ধন ছাড়া গাড়ি চালালে অনধিক ৬ মাসের জেল বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড বিধান রয়েছে। নতুন আইন হতে, ফিটনেস সনদ ছাড়া বা মেয়াদ পেরোনো ফিটনেস সনদ ব্যবহার করে ইকোনমিক লাইফ অতিক্রম বা ফিটনেসের অনুপযোগী ঝুঁকিপূর্ণ গাড়ি চালালে ৬ মাসের জেল বা অনধিক ২৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ড দেয়া হবে। এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে আগের তুলনায় শাস্তি বাড়ানো হয়েছে। অবহেলায় গাড়ি চালালে গুরুতর আহত বা প্রাণহানিতে সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদণ্ড বা অনধিক ৫ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড। উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হত্যাকাণ্ড প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড। লেন ভঙ্গ বা হেলমেট ব্যবহার না করায় অনধিক ১০ হাজার টাকা জরিমানা, ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ৬ মাসের জেল বা ২৫ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড নিবন্ধন ছাড়া গাড়ি চালালে ৬ মাসের জেল বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড, ফিটনিসবিহীন গাড়ি চালালে ৬ মাসের জেল বা ২০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ