আজ শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শার্শার পাকশিয়াতে মুয়াজ্জিন কর্তৃক প্রতিবন্ধী ধর্ষিত

বেনাপোল(অফিস),
শার্শার পাকশিয়া বাজারে মসজিদের মুয়াজ্জিন মোজাম্মেল মোড়ল (৫১) কর্তৃক শিববাস গ্রামের মানসিক প্রতিবন্ধী (১৯) ধর্ষিত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২ সেপ্টেম্বর সোমবার রাত্রে উপজেলার পাকশিয়া বাজারে। ধর্ষক মোজাম্মেল টেংরালী গ্রামের হামিদ মোড়লের ছেলে এবং টেংরালী গ্রামের দক্ষিণপাড়া মসজিদের মুয়াজ্জিন ও পাকশিয়া বাজারের নৈশ্য প্রহরী। গত শনিবার বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ায় ডিহি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হোসেন আলী এবং পাকশিয়া বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রাসেল ধামাচাপা দিয়ে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করেছে। এ ঘটনাটি এখন পাকশিয়া বাজারের লোকজনের মুখে মুখে কিন্তু কেউ ভয়ে প্রকাশ করতে পারছে না।
এলাকাবাসী জানান, ২ সেপ্টেম্বর সোমবার রাত্রে উপজেলার ১নং ডিহি ইউনিয়নের পাকশিয়া বাজারে ডিউটিতে থাকাকালীন নৈশ প্রহরী মোজাম্মেল শিববাস গ্রামের মানসিক প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি ইউপি মেম্বর মোমিন ও তার সহযোগী হাসেম আলী জেনে ফেলায় ঐ রাত্রেই মোজাম্মেলের বিয়াই ইউনিয়নের চৌকিদার শরিফুল ইসলামের মাধ্যমে আর প্রকাশ পাবে না বা কিছু হবে না শর্তে পাঁচ হাজার টাকার বিনিময়ে রফাদফা হয়। ঘটনাক্রমে বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ায় শনিবার বিকালে চৌকিদার শরিফুল ইসলামের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা লেনদেন করে কৌশলে ইউনিয়ন পরিষদে মীমাংসার জন্য বসে। মোমিন মেম্বরকে বাঁচিয়ে হাসেম আলীকে এক সপ্তাহের ভিতর পরিশোধে বাকি পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। ধর্ষক মোজাম্মেলকে বিচারকরা ক্ষমা করে দেন। গ্রামের মুয়াজ্জিন এধরণের কান্ড করেছে তাই আমরা এলাকাবাসী এর একটা শুনাশুনি করব।
পাকশিয়া বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রাসেল ইতিপূর্বে ধর্ষক মোজাম্মেল ও তার ছেলের বৌকে নিয়ে একটি কথা শুনার বিষয় স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি সত্য নয়। একটি ছেলে বাজারের নাইটগার্ড ও পাগলীকে নিয়ে একটি মিথ্যা অপবাদ ছড়িয়েছে। আমি চেয়ারম্যান ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা থেকে বিচার করেছি। বিচারে ছেলেটি বলেছে আমি দেখি নাই, তাই এ ধরণের অপবাদ দেওয়ায় তাকে আমরা পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছি।
গোড়পাড়া ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই খান মাসুদ রানা বলেন,আমি নতুন যোগদান করেছি। ধর্ষণের এ ধরণের ঘটনা আমার জানা নাই। আমি শুনলাম এবং আমার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে অবহিত করব।শার্শার ডিহি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হোসেন আলী বলেন, ঘটনাটি মিথ্যা। পরিষদে দু‘পক্ষকে নিয়ে বসেছিলাম। যারা ঘটনাটি ছড়িয়েছে তাদের কেই জরিমানা করা হয়েছে। ঐ মহিলাটা একটা পাগলী তাই একটি পক্ষ এঘটনাটি নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে।#
প্রেরক
মিলন হোসেন বেনাপোল,
মোবাইল ০১৭১২ ২১৭১৪৩-০১৯২১২৮৮৫৪১
তারিখ ১০/০৯/২০১৯

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ