২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার,বিকাল ৪:৩৭

শাটডাউনের খবরে পায়ে হেঁটেই ঢাকা ছাড়ছে মানুষ

প্রকাশিত: জুন ২৫, ২০২১

  • শেয়ার করুন

শাটডাউনের ঘোষণা আসতে পারে এমন খবরে আগেভাগেই ঢাকা ছাড়ছেন অনেকে। ছুটির দিনের সকালে রাজধানীর প্রবেশ মুখে মানুষের ঢল নামে।

বাস বন্ধ থাকায় ভেঙে ভেঙে কয়েক গুণ বেশি ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে ছুটছেন সাধারণ মানুষ। প্রতিটি গাড়িকেই পুলিশের তল্লাশি চৌকি পার হতে হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কোনো গাড়িকেই ঢাকায় ঢুকতে বা বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। কিন্তু ঠেকানো যাচ্ছে না পায়ে’হাঁটা মানুষের ঢল।

শুক্রবার (২৫ জুন) সকালে থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের প্রবেশদ্বার খ্যাত রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ফেরি ঘাট এলাকায় মানুষের ঢল লক্ষ করা যায়। লকডাউন উপেক্ষা করেই ছুটছেন হাজার হাজার নারী-পুরুষ। মাস্কও নেই অনেকের মুখে। জিজ্ঞেস করলেই অজুহাতের নানা কথা। শাটডাউনের কথা শুনে আগে’ভাগেই রাজধানী ছাড়ছেন তারা।

কয়েকজন জানান, শাটডাউন আসতেছে। এজন্য বাড়ি চলে যাচ্ছি। এখানে থেকে কী করব? তাই চলে যাচ্ছি।যানবাহন না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে কাভার্ডভ্যান, ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেলসহ বিকল্প বাহনে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া গুনতে হচ্ছে তাদের। পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগেরও।

তবে গোয়ালন্দ বাস টার্মিনাল থেকে কোন বাস চলাচল না করলেও অগণিত সিএনজি চলতে দেখা যায়। এই সিএনজি দিয়েই মানুষ যাচ্ছে তার গন্তব্য স্থানে। তবে ভাড়া গুনতে হচ্ছে দ্বিগুণ এর ও বেশি। ফেরি ঘাট থেকে রাজবাড়ীর ভাড়া ১শত, পাংশার ভাড়া ২ শত, কুষ্টিয়ার ভাড়া ৪ শত। অন্যদিকে ফরিদপুরের ভাড়া ১শত, মধুখালির ভাড়া ১ শত ৫০ টাকা, মাগুরার ভাড়া ৩ শত টাকা হারে যাত্রীদের জিম্মি করে ভাড়া নিচ্ছে।

অতিরিক্ত ভাড়ার বেপারে কয়েক জন যাত্রী বলেন, আমাদের কিছু করার নাই বাড়ি তো যেতেই হবে। তাই অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েই বাড়ি যাচ্ছি।

তবে গাড়িতে গাদাগাদি করে যাত্রী নিয়ে যাচ্ছে প্রতিটি সিএনজি। ডাইভারদের সাথে কথা হলে তারা বলেন আমরা ফেরার পথে কোন যাত্রী পাবো না এই জন্য একটু বেশি ইনকামের আশায় অতিরিক্ত যাত্রী নিচ্ছি।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন