আজ শুক্রবার, ৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে খালিশপুর ক্লিনিকে রাতভর উত্তেজনা: আটক ২

স্টাফ রিপোর্টার খুলনা মহানগরীর খালিশপুর ক্লিনিকে রিপন সর্দার (২৪) নামে এক পলিটেকনিক ছাত্রের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে রাতভর উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এতে রোগীর স্বজনদ্বারা কর্তব্যরত চিকিৎসককে মারধোরের পর জোর করে খুমেক হাসপাতালে নিয়ে আসার অভিযোগ রয়েছে। এ ঘটনায় খুমেক হাসপাতাল থেকে কায়েস ও কৌশিক নামে দুই জনকে আটক করেছে সোনাডাঙ্গা পুলিশ।
খোজ নিয়ে জানাযায়, নগরীর মুজগুন্নীর শেখ পাড়া এলাকার বাসিন্দা শওকত সর্দার এর ছেলে সিটি পলিটেকনিক এর ছাত্র রিপন সর্দার (২৪) বুকে ব্যাথা অনুভব করায় রাত ১২টায় খালিশপুর ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক চিকিৎসা দেয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই রিপনের মৃত্যু হয়। এসময় অল্প সময়ের মধ্যে রোগীর মৃত্যুতে স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে চিকিৎসককে মারধোর করে চিকিৎসকসহ রিপনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে।
সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যদের সাথেও বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পরে রোগীর স্বজনরা। সেখান থেকে কায়েস ও কৌশিক নামে দুই যুবককে গ্রেফতার করে সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশ।
খালিশপুর ক্লিনিকের সত্বাধিকারী ডাঃ মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, রাত ১২টার পরে একটা রোগী আসে বুকে ব্যাথা নিয়ে। তাকে সম্ভাব্য সকল চিকিৎসা দেয়া হয়। চিকিৎসা চলাকালীন তার মৃত্যু হয়। কিন্তু হাসপাতালে সন্ত্রাসীরা কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ সুজাউদ্দিনকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে অস্ত্রের মুখে খুমেক হাসপতালে নিয়ে যায়। সে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অর্থপেডিক ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে।
সোনাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মমতাজুল হক বলেন চিকিৎসককে লাঞ্ছিত ও জিম্মি করে খুমেক হাসপাতালে নিয়ে আসার জন্য কায়েস ও কৌশিক নামে দুই যুবককে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ