আজ বুধবার, ২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিশ্ববিদ্যালয়কে দুর্নীতি মুক্ত ও আন্তর্জাতিকীরণের চেষ্টায় সফল ইবি ভিসি

ড. মোঃ হাবিবুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়,কুষ্টিয়া: দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। কুষ্টিয়া শহর থেকে ২৪ কিমি দক্ষিণে এবং ঝিনাইদহ শহর থেকে ২২ কিমি

উওরে কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়কের পাশে ১৭৩একর চির সবুজের এই ক্যাম্পাস ছিল নানা সমস্যায় জর্জরিত।

বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশ হিসাবে এবং ভাবমূর্তি সঙ্কটে নিমজ্জিত বিশৃঙ্খল বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বক্ষেত্রে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে ২১ শে আগস্ট, ২০১৬ইং সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর ও মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক ড. মোঃ হারুন- উর- রশিদ আসকারীকে ১২তম উপাচার্য হিসাবে নিয়োগ দেন।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক, ইংরেজী বিভাগের তিনবারের সভাপতি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করা এই অধ্যাপক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে আধুনিক, বিজ্ঞান-মনস্ক, প্রগতিশীল, সেশন জটমুক্ত,দুর্নীতিমুক্ত ও আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে যাত্রা শুরু করেন। প্রফেসর আসকারীর দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রগতিও সফলতা লাভ করেন।

অবকাঠাকামোগত উন্নয়নঃ প্রফেসর আসকারী উপাচার্য হিসাবে দায়িত্ব গ্রহনের পর পূর্বের প্রশাসনের সময়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় অধিকতর উন্নয়ন(২য়পর্যায়) প্রকল্পে বরাদ্দকৃত (কিন্তু অব্যবহৃত) ৭১কোটি টাকার প্রোজেক্ট স্বচ্ছ টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাস্তবায়ন করেন যা সরকারের implementation monitoring and evaluation division এর মাধ্যমে দেশের অনুকরণীয় বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে খ্যাতি লাভ করে, ফলশ্রুতিতে ৩য় পর্যায়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় মেগা প্রকল্পের আওতায় ইনফ্রাস্ট্রাকচার এবং একাডেমিক উন্নয়নের জন্য ৫৩৭ কোটি ৭লক্ষ টাকা বরাদ্দ পায় যেখানে ১১টি ভবনের ভার্টিকেল বর্ধিতকরণ ও ৯টি দশতলা বিল্ডিং রয়েছে যেমন (১) ১০তলা একাডেমিক ভবন (২) ১০তলা ছাত্র হল নং১ (৩) ১০তলা ছাত্র হল নং২ (৪) ১০তলা ছাত্রী হল নং১ (৫) ১০তলা ছাত্রী হল নং২ (৬) ১০তলা শেখ রাসেল হলের বি ব্লক-১ (৭) ১০তলা প্রশাসন ভবন (৮) বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদ ভবনের ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (৯) ব্যবসায় প্রশাসন ভবনের ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (১০) রবীন্দ্র-নজরুল একাডেমিক ভবনের ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (১১) মীর মশাররফ হোসেন একাডেমিক ভবনের ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (১২) ১০তলা শিক্ষক-কর্মকর্তা কোয়ার্টার (১৩) ১০তলা কর্মচারী কোয়ার্টার (১৪) ডরমিটরী ভবন (১৫) ইবি ল্যাব স্কুল (১৬) বীরশ্রেষ্ট হামিদুর রহমান মিলনাতায়নের ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (১৭) ১০তলা শিক্ষক-কর্মকর্তা কোয়ার্টার ২ এর ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন (১৮) মেডিকেল সেন্টার ঊর্ধমুখী সম্প্রসারন।

প্রফেসর আসকারীর সময়ে অধিক স্বচ্ছতার মাধ্যমে ইলেকট্রনিক টেন্ডারিং পদ্ধতি চালু হয়। ইতোমধ্যে নানাবিধ বাধা উপেক্ষা করে সম্পূর্ন স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় ১৮টি ভবনের ভার্টিকেল বর্ধিতকরণের নির্মান কাজ চলছে, এছাড়া ৯টি দশতলা ভবনের ডিজাইন শেষে টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে এর আগে আর ও ৭টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে যাদের সবগুলোর অর্থমিলে এই প্রকল্পের অর্ধেক ও হবে না। এছাড়াও বর্তমান প্রশাসনের সময় পুরো ক্যাম্পাসে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে।

একাডেমিক উন্নয়নঃ প্রফেসর আসকারী প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর একাডেমিক কর্মকাণ্ডে ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে আসে, তার সময়ে একটা মহলের বাধা সত্ত্বেও অফিস সময়৮.০০টা ২.০০টার পরিবর্তে ৯.০০থেকে ৪.৩০পর্যন্ত করা হয়।

বর্তমান প্রশাসনের সময়ে ৫বছর (২০১৬-২০২১) মেয়াদী মডেল অর্গানোগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত হয়, পূর্ববর্তী ৫টি অনুষদকে ৮টিতে বর্ধিতকরণ করা হয়, ৯টি নতুন বিভাগ চালু করে ৩৪টি করা হয়, বিদেশী শিক্ষার্থীদের ভর্তি, এমফিল-পিএইচডি নীতিমালা আন্তর্জাতিকীকরণ, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী অটোমেশন, রেজাল্ট প্রোসেসিং সফটওয়ার সংযুক্ত, কেন্দ্রীয় ল্যাবরেটরী ও ইনোভেশন ল্যাব স্থাপন করা হয়। ফেসবুক থেকে শুরু করে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ দেখে বর্তমান প্রশাসন দীর্ঘ ১৬বছর পর ৪র্থ সমাবর্তন-২০১৮ আয়োজন সম্পন্ন করেন যা এ যাবত কালের সবচেয়ে বৃহৎ সমাবর্তন।

বর্তমান প্রফেসর আসকারী প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর সেশন জট নিরসনের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে যেখানে সেশন জটের অনেক গুলো কারণ ছিল, তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন কারণে অনির্ধারিত ছুটি। বর্তমান প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয় একদিন ও অযাচিতভাবে বন্ধ থাকেনি। তাছাড়া বর্তমানে শিক্ষক, সংশ্লিষ্ট স্টেক হোল্ডার এবং সংগঠনের সহযোগিতার কারণে সেশন জট প্রায় শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। একাডেমিক রুটিনগুলো পরিবর্তন করা হয়েছে।

২২বিভাগে সেলফ অ্যাসেসমেন্ট সহ কারিকুলাম পরিবর্তন করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে পড়ানো হলেও ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি দেওয়া হতোনা প্রফেসর আসকারী প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর পাঁচটি বিভাগ নিয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ চালুর মাধ্যমে ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রী দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও অফিস আওয়ার বাড়ানোর কারনে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ক্যাম্পাসের প্রতি আকৃষ্ট করার জন্য প্রশাসন সবুজও বর্ণিল ক্যাম্পাস তৈরিতে গুরুত্ব আরোপ করেছে।

ক্যাম্পাসের লেক পরিষ্কার করে নয়নাভিরাম লেক করা হয়েছে, বোটানিকালগার্ডেন করা হয়েছে, পানির ফোয়ারা করা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের খাবারের মান বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়াও ক্যাম্পাসে থেকে শিক্ষার্থীদের যেকোন সংকোট নিরোসনের জন্য শিক্ষকদের জন্য আন্তর্জাতিক মানের গেস্ট হাউজ করা হয়েছে, শিক্ষকদের ডরমেটরি সম্প্রসারন করা হয়েছে।

শিক্ষকদের সন্তানেরা ক্যাম্পাসে থেকে যাতে কোয়ালিটি এডুকেশন পায়, সেইজন্য বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবরেটরী স্কুলকে যুগপোযোগী করার জন্য পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য এবং শিক্ষকদেরকে ক্যাম্পাস মুখী করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের নিচে সুবিশাল জায়গা জুড়ে একটি শপিং কমপ্লেক্স করার পরিকল্পনা করা হয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে টাউন শিপ গড়ে তোলার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিকী করণে সাফল্যে: আন্তর্জাতিকী করণে প্রতিশ্রুতি দিয়ে দায়িত্ব গ্রহন করা প্রফেসর আসকারী প্রশাসন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এমওইউ সম্পন্ন করেছে।খেলাধুলায় দেশি ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিনিধিত্ব করে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে।আন্তর্জাতিকী করণের শর্ত পূরণের লক্ষ্যে দীর্ঘদিন থেকে বন্ধ থাকা বিদেশী শিক্ষার্থী ভর্তি পুরনায় চালু করা হয়েছে।

গতশিক্ষাবর্ষপর্যন্ত৪০জনবিদেশীশিক্ষার্থীছিলএবংবর্তমানশিক্ষাবর্ষেওবেশকিছুবিদেশীশিক্ষার্থীভর্তিহয়েছে।বর্তমানপ্রশাসনেরআমলেবিদেশীশিক্ষার্থীভর্তিঅব্যাহতআছেএবংইতিমধ্যবেশকিছুবিদেশিশিক্ষার্থীডিগ্রীওঅর্জনকরেদেশেফিরেগেছে।বর্তমানেশতশতবিদেশীশিক্ষার্থীনতুনকরেভর্তিরজন্যআবেদনকরছেএবংপ্রফেসরআসকারীপ্রশাসনতাদেরযোগ্যতাবিচারকরেপরবর্তীতেভর্তিরবিষয়েসিদ্ধান্তগ্রহণকরছে।

গতবছরদেশেপ্রথমবারেরমতোইসলামীবিশ্ববিদ্যালয়েআয়োজনকরাহয়েছেএশিয়-প্রশান্তমহাসাগরীয়আন্তর্জাতিকজোট- আইসিএসডিএপি’রসামাজিকউন্নয়নসম্মেলন-২০১৯।উক্তসম্মেলনেঅংশনিয়েছেনএশিয়া, ইউরোপওঅস্ট্রেলিয়ার৮দেশের৪৮বিদেশীবিশেষজ্ঞসহ২৬৭জন।প্রফেসরআসকারীরপ্রচেষ্টায়তুরষ্কেরইরাসমাসইন্সটিটিউশনেরমাধ্যমেইউরোপিয়ানইউনিয়নভুক্তবিশ্ববিদ্যলয়গুলোরসাথেমোবিলিটিপ্রোগ্রামপ্রতিষ্ঠারদ্বারউন্মোচনহয়েছে।

আর্থিকখাতেউন্নয়নঃ বিগতপ্রশাসনেরআমলে২০১৫-২০১৬ইংঅর্থবছরেবাজেটছিল৮৪কোটি৮২লক্ষটাকা।প্রফেসরআসকারীপ্রশাসনেরপ্রচেষ্টায়বাজেটবরাদ্দবাড়তেথাকেএবং২০১৯-২০২০অর্থসালে১৫৩কোটি৫৮লক্ষটাকাবাজেটবরাদ্দপাওয়াগেছেএবংসংশোধিতবাজেটে১১কোটি৩৭লক্ষঅতিরিক্তবরাদ্দপাওয়াগেছে।অভ্যন্তরীনআয়বিগতপ্রশাসনেরআমলে২০১৫-২০১৬ইংঅর্থবছরে৮কোটিটাকামাত্র।

বর্তমানপ্রশাসনেরআমলে২০১৮-২০১৯অর্থবছরেসর্বোচ্চ১৯কোটিটাকাআয়হয়েছে।বিগতপ্রশাসনেরআমলে২০১৫-২০১৬ইংঅর্থবছরপর্যন্ত৫৭কোটি৯৪লক্ষটাকাবাজেটঘাটতিহয়েছে।বর্তমানপ্রশাসনেরআমলে২০১৬-২০১৭অর্থবছরে৯কোটি৫০লক্ষটাকাএবং২০১৭-২০১৮অর্থবছরে৮কোটি৩৩লক্ষটাকা , ২০১৮-২০১৯অর্থবছরে৩কোটিটাকাবাজেটঘাটতিহয়েছেএবং২০১৯-২০চ২০অর্থবছরেকোনবাজেটঘাটতিহবেনাবলেআশাপ্রকাশকরাহয়েছে।বিগতপ্রশাসন১২৩জনঅনুমোদনবিহীনঅতিরিক্তজনবলনিয়োগদিয়েছেনযাদেরজন্যকোনঅর্থবরাদ্দপাওয়াযেতনাফলেপ্রতিবছরঅনেকটাকাবাজেটঘাটতিহয়েছে।

বর্তমানপ্রফেসরআসকারীপ্রশাসন১২৩জনজনবলমঞ্জুরীকমিশনথেকেঅনুমোদননিয়েছেনএবংঅর্থবরাদ্দওপাওয়াগিয়েছে।ইসলামীবিশ্ববিদ্যালয়ল্যাবরেটরীস্কুলএন্ডকলেজেরঅনুমোদনবিহীনথাকায়বিগতপ্রশাসনএরজন্যঅর্থবরাদ্দনিতেপারেনাই।যারফলেবিশ্ববিদ্যালয়েরঅনেকটাকারঘাটতিহয়েছে।বর্তমানপ্রশাসনচলতি২০১৯-২০১২০অর্থবছরেইসলামীবিশ্ববিদ্যালল্যাবরেটরীস্কুলএন্ডকলেজকেবিশ্ববিদ্যালয়েরজনবলহিসাবেঅনুমোদননিয়েছেনএবংঅর্থপাওয়াগিয়েছে।

২০১৫-২০১৬ইংঅর্থবছরপর্যন্তভর্তিপরীক্ষারআয়থেকেবিগতপ্রশাসন২১% আয়করতেন।বর্তমানপ্রশাসনগত২০১৭-২০১৮শিক্ষাবছরথেকেমঞ্জুরীকমিশনেরনির্দেশনামোতাবেকভর্তিপরীক্ষারফরমবিক্রিরপ্রাপ্তঅর্থথেকে৪০% বিশ্ববিদ্যালয়েরতহবিলেজমাকরেআয়বৃদ্ধিকরছেন।বিগতপ্রশাসনআমলেসরকারীনিয়মেবিদ্যুৎবিলআদায়করাহয়নি।মঞ্জুরিকমিশনেরনির্দেশনামোতাবেকসরকারীনিয়মেআবাসিকএলাকায়বিদ্যুৎবিলআদায়করাহচ্ছেওবাসাভাড়াবৃদ্ধিকরাহয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বর্তমান প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রীদেরপরীক্ষারফিসওঅন্যান্যফিসসমূহবৃদ্ধিকরেআয়বৃদ্ধিরব্যবস্থাগ্রহনকরায়বিশ্ববিদ্যালয়েরআয়অনেকবৃদ্ধিপেয়েছেযাবিগতপ্রশাসনেরআমলেসম্ভবহয়নি।

মুক্তিযুদ্ধভিত্তিকওপ্রগতিশীলরাজনৈতিকচর্চারউন্নয়নঃদীর্ঘকালধরেজামায়াত-শিবিরঅধ্যুষিতইসলামীবিশ্ববিদ্যালয়কেপ্রগতিশীল-অসম্প্রদায়িকহিসেবেগড়েতোলারউদ্যোগগ্রহনকরাহয়েছে।প্রধানফটকেঅনিন্দ্যসুন্দরজাতিরপিতাবঙ্গবন্ধুশেখমুজিবুররহমানেরএকটিসুবিশালম্যুরাল‘মৃতুঞ্জয়ীমুজিব’, কেন্দ্রীয়গ্রন্থাগারে‘মুক্তিযুদ্ধকর্ণার’, ‘বঙ্গবন্ধুকর্ণার’ও‘একুশেকর্ণার’, বঙ্গবন্ধুহল- এশ্বাশ্বতমুজিবওমুক্তিরআহবানম্যুরালস্থাপিতকরাহয়েছে।

বঙ্গবন্ধুরউপরগবেষনারজন্যবঙ্গবন্ধুচেয়ারপ্রতিষ্ঠিতকরেপ্রফেসরশামসুজ্জামানখানকেবঙ্গবন্ধুচেয়ারঅধ্যাপকনিয়োগদেওয়াহয়েছে।বর্তমানেপ্রফেসরআসকারীপ্রশাসনবিশ্ববিদ্যালয়েজঙ্গিবাদমোকাবেলারজন্য, মাদকসন্ত্রাসমুক্তবিশ্ববিদ্যালয়গড়ারজন্যখেলাধুলাএবংসাংস্কৃতিকচর্চারপ্রতিগুরুত্বআরওবাড়িয়েদিয়েছে।তাছাড়াওপ্রতিবছরক্যাম্পাসেবৈশাখীমেলাওবইমেলারআয়োজনেরপ্রচলনশুরুহয়েছে।মাদক-সন্ত্রাসওজঙ্গিবাদমুক্তদেশগড়তেসাংস্কৃতিকওসচেতনতাসৃষ্টিমূলকবিবিধশিক্ষাকর্মসূচিচালিয়েযাওয়াহচ্ছে।

পরিবহন ও আবাসিক সমস্যার সমাধান: ইসলামীবিশ্ববিদ্যালয়েরএক্ট১৯৮০অনুযায়ীএটিএকটিপূর্ণাঙ্গআবাসিকবিশ্ববিদ্যালয়কিন্তুএটিপরিপূর্নআবাসিকনাহওয়ায়এবংকুষ্টিয়াশহরথেকে২৪কিমিএবংঝিনাইদহথেকে২২কিমিদূরেঅবস্থিতহওয়ায়প্রতিদিন১২২৩জনশিক্ষককর্মকর্তাওকর্মচারীএবং১৪৪৫৪জনছাত্রছাত্রীকুষ্টিয়াওঝিনাইদহথেকেআনানেওয়াকরতেহয়।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ

ফেসবুকে দৈনিক তথ্য