আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আগস্ট, ২০২০ ইং, ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুর দন্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামি অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন আবদুল মাজেদ প্রাণভিক্ষা চেয়ে যে আবেদন করেছেন, তা নাকচ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

নিজস্ব প্রতিদেকঃ  কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, মৃত্যুর পরোয়ানা হাতে পেয়ে পড়ে শোনানোর পর রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়েছেন বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আত্মস্বীকৃত খুনি মৃত্যু দণ্ডপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আব্দুল মাজেদ।

অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক কর্নেল মো. আবরার হোসেন বুধবার (০৮ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টায় সাংবাদিদের প্রশ্নের উত্তরে  বলেন, “উনি সব দোষ স্বীকার করে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়েছেন। আমরা সন্ধ্যার পরপরই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি। এখন পরবর্তী আদেশের অপেক্ষায় আছি। আদেশ যাই হোক, আমরা সার্বিকভাবে প্রস্তুত আছি।”

রাতে বঙ্গভবনের একটি সূত্র  নিশ্চিত করেছেন, প্রাণভিক্ষার ওই আবেদন পৌঁছানোর পর তা মহামান্য রাষ্ট্রপ্রধান খারিজ করে দেন।

জজ আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় এসেছিল ২০০১ সালে। এরপর ২০০৯ সালে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ থেকে চূড়ান্ত রায় আসে।

এ মামলার রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন “রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সময় অনেক আগেই শেষ হয়ে যাওয়ায় আবদুল মাজেদ সে সুযোগ পাওয়ার অধিকার রাখেন না”।

বাঁচার জন্য একমাত্র সুযোগ বাকি ছিল সাংবিধানিক অধিকার হিসেবে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাওয়া। এখন তার আবেদন প্রত্যাখ্যান হওয়ায় কারা কর্তৃপক্ষের সামনে দণ্ড কার্যকরে আর কোনো বাধা থাকছে না। তবে দণ্ড কার্যকর করার আগে সাধারণত পরিবারের সদস্যদের শেষবার দেখা করার সুযোগ দেওয়া হয়।

মাজেদের স্ত্রী সালেহা বেগম, চার মেয়ে ও এক ছেলে ঢাকা সেনানিবাসের এক নম্বর রোডের একটি বাসায় থাকেন।

 

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ

ফেসবুকে দৈনিক তথ্য