আজ বুধবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জনসনের টিকার এক ডোজেই কাজ হচ্ছে! বছরে ১০০ কোটি ডোজ উৎপাদন করবে চীন

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আরও একটি সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিল যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বহুজাতিক কোম্পানি জনসন অ্যান্ড জনসনের আবিস্কৃত টিকা। তাদের এই টিকার একটি মাত্র ডোজই নোভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে আক্রান্ত মানুষের শরীরে শক্তিশালী প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। ‘এডি২৬.কোভ২.এস’ নামে এই টিকার মানবদেহে পরীক্ষার প্রথম ও মধ্যবর্তী ধাপে ইতোমধ্যে তা প্রমাণিত হয়েছে। এদিকে চীন সরকার ঘোষণা দিয়েছে, প্রতিবছর তারা ১০০ কোটি ডোজ করোনা টিকা উৎপাদন করবে। খবর রয়টার্সের।

শুক্রবার মেডআরএক্সআইভি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত টিকার পরীক্ষার ফলাফল প্রতিবেদনে বলা হয়, পৃথকভাবে দুটি ডোজ প্রয়োগ করে সমান প্রতিক্রিয়া মিলেছে। তবে একটি মাত্র ডোজ দিলে কতটা কাজ হয় এবং দুটি ডোজ প্রয়োগে কী ফল পাওয়া যায়, তাও পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। তাতেও যদি দেখা যায় একটি ডোজেই কাজ হচ্ছে, সে অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তবে বয়স্কদের মধ্যেই সংক্রমণের আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। তাদের উপর এর এই প্রতিষেধক কতটা কার্যকরী হবে, অল্পবয়সীদের মতো এই প্রতিষেধকের একটি মাত্র ডোজ তাদেরও সমান ভাবে রক্ষা করবে কি না, তা নিয়ে এখনও দ্বিধা রয়েছে।

জনসন অ্যান্ড জনসনের তৈরি সম্ভাব্য করোনা প্রতিষেধকের নাম এডি২৬.কোভ২.এস। গত জুলাই মাসে প্রথমে একদল হনুমানের উপর ওই প্রতিষেধক পরীক্ষামূলক ভাবে প্রয়োগ করা হয়। তাতে দেখা যায়, কোভিড-১৯ ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পেরেছে সেটি। তার পরেই মার্কিন সরকারের অনুমোদনে ১ হাজার প্রাপ্তবয়স্কের উপর প্রাথমিক পর্যায়ে সেটির প্রয়োগ শুরু হয়।

প্রতিষ্ঠানটির গবেষকদের দাবি, এখনও পর্যন্ত যাদের উপর ডোজ প্রয়োগ করা হয়েছে, তাদের মধ্যে ৯৮ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে, যা কিনা টিকা নেওয়ার পর ২৯ দিন পর্যন্ত প্যাথোজেন থেকে কোষগুলোকে রক্ষা করতে সক্ষম।

সম্ভাব্য ওই প্রতিষেধকের প্রয়োগে শরীরে কী প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়, তা ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে মাত্র ১৫ জনের উপরে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। তাই ব্যাপক হারে পরীক্ষা না হওয়া পর্যন্ত নিশ্চিতভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে আগামী দিনে নিরাপত্তা এবং কার্যকারিতা সম্পর্কে সবিস্তার তথ্য প্রকাশ করা হবে বলে সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জনস্বাস্থ্য বিভাগের অধ্যাপক টিএইচ চ্যানের মতে, কোনও প্রতিষেধকের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানতে হলে আরও ব্যাপক হারে পরীক্ষা করার প্রযোজন।তৃতীয় ধাপের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তবেই কোনও প্রতিষেধককে নিরাপদ বলে মানা সম্ভব।

প্রাথমিক ট্রায়ালের পর এবার জনসন অ্যান্ড জনসন ইতোমধ্যেই ৬০ হাজার মানুষের উপর সম্ভাব্য প্রতিষেধকের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করেছে। এ বছরের শেষ দিকে অথবা চলতি বছরের শুরুতেই তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষায় তারা উত্তীর্ণ হবে এবং তার পরেই নিয়ামক সংস্থার কাছ থেকে অনুমোদনও হাতে চলে আসবে বলে আশাবাদী জনসন অ্যান্ড জনসন কর্তৃপক্ষ।

তবে করোনার প্রতিষেধক তৈরির দৌড়ে জনসন অ্যান্ড জনসনের থেকে ফাইজার এবং মডার্নাকেই এগিয়ে রাখছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই দুই সংস্থা জনসন অ্যান্ড জনসনের আগে প্রতিষেধক এনে ফেলবে বলে ধারণা তার।

 

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ

ফেসবুকে দৈনিক তথ্য