২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার,রাত ২:০২

শিরোনাম
খুলনার ৬ টি আসনে জয়ী নৌকার প্রার্থীরা বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তার লক্ষ্যে নৌবাহিনী মোতায়েন ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে এমপি সালাম মুর্শিদীর লোকের, অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থীর ভারতীয় ও রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সাথে নৌপ্রধানের সাক্ষাৎ বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ রুহুল আমিন ও বীর বিক্রম শহিদ মহিবুল্লাহর শাহাদত বার্ষিকী পালন রূপসা প্রেসক্লাবের উদ্যোগে বীর ‍মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান নৌবাহিনীর ৬৭১ জন নবীন নাবিকের শিক্ষা সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত আমরা একবারও বলিনি তফসিল পেছানোর কথা : ইসি আহসান হাবিব শীতকালীন রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করলেন নৌবাহিনী প্রধান

খুলনার শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারের দুই সহযোগীর খালাস

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

  • শেয়ার করুন

দোষী না নির্দোষ তা জানার আগেই কারাগারে কেটেছে ২২ বছর। শেষ পর্যন্ত নির্দোষ প্রমাণ হওয়ায় খালাস পেলেন খুলনার শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারের দুই সহযোগী জামাই ফারুক ও ইদ্রিস জামাই।
তাদের বিরুদ্ধে অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় সোমবার (২১সেপ্টেম্বর) ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

তবে এ মামলার অন্য দুই আসামি বরিশালের গৌরনদীর ভনচড়া এলাকার আহম্মদ আলী সরকারের ছেলে জয়নাল সরকারকে মৃত্যুদণ্ড এবং বাগেরহাটের মোড়লগঞ্জের উমাকাটি এলাকার মৃত মন্তাজ উদ্দিনের ছেলে রুস্তম আলীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। রাজধানীর লালবাগের কাচ ব্যবসায়ী আব্দুল আজিজ চাকলাদার ওরফে ঢাকাইয়া আজিজকে হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড ও আরেকজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। আজ সোমবার ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে রায় ঘোষণার সময় তারা দু’জনেই পলাতক ছিলেন। এছাড়া অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর দুই আসামি জামাই ফারুক ও ইদ্রিসকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। এছাড়া মামলার প্রধান আসামি খুলনার কুখ্যাত সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারকে অন্য মামলায় ২০০৪ সালের ১০ মে ফাঁসিতে ঝোলানো হয় এবং আরেক আসামি লস্কর মো. লিয়াকত মারা যাওয়ায় মামলার বিচার চলাকালে তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়। রায়ে বলা হয়েছে, যে রাজসাক্ষীর উপর ভিত্তি করে রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের সবার মুত্যুদণ্ড চেয়েছিল, তিনি তদন্ত কর্মকর্তা বা হাকিমের সামনে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে জামাই ফারুক বা ইদ্রিসের নাম বলেননি। রাষ্ট্রপক্ষ অন্য কোনোভাবে তাদের অপরাধ প্রমাণ করতে না পারায় দীর্ঘ ২২ বছর কারাগারে থাকা এই দুই আসামিকে খালাস দেওয়া হয়। মামলা সূত্রে জানাগেছে, পুরাণ ঢাকার কাচ ব্যবসায়ী আজিজ চাকলাদার ১৯৯৮ সালের ৫ মার্চ সকাল ৭টায় ঢাকার লালবাগ রোডের বাসা থেকে খুলনা যাওয়ার পথে নিখোঁজ হন। এ ঘটনায় তার ছোট ভাই মো. বাচ্চু মিয়া লালবাগ থানায় একটি জিডি করেন। ঘটনার ১২ দিন পরে মাকসুদ ও আমানুল্লাহ নামে দুই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অপহরণ মামলা করেন বাচ্চু। এ মামলার তদন্তের মধ্যেই খুলনার রূপসা নদী থেকে এক ব্যক্তির মাথার খুলি ও হাড় উদ্ধার করে পুলিশ। পরে খুলনার খালিশপুর থানার অন্য একটি মামলার জব্দ তালিকা থেকে জানা যায়, সেগুলো আজিজের। লালবাগ থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুর রাকিব খান এ মামলার দ্বিতীয় তদন্তক কর্মকর্তা হিসেবে ২০০০ সালের ৪ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগপত্রে বলা হয়, খুলনার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারের নির্দেশে ঢাকাইয়া আজিজকে খুন করা হয়। ওই অভিযোগপত্রে সাতজনকে আসামি করা হলেও মাকসুদ ও আমানুল্লাহকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। ওই সাত আসামি হলেন- খুলনার শীর্ষ সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদার, লস্কর মোহাম্মদ লিয়াকত, মো. নূরে আলম, ইদ্রিস জামাই, জয়নাল, জামাই ফারুক ও মো. রুস্তম আলী। এছাড়া নূরে আলমকে রাষ্ট্রপক্ষ রাজসাক্ষী হিসেবে আদালতে উপস্থাপন করে। ফলে তাকেও আর বিচারের আওতায় আনা হয়নি।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন