আজ বুধবার, ৩রা মার্চ, ২০২১ ইং, ১৮ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কপিলমুনি প্রেসক্লাবে যুবলীগ নেতা রাজুর সংবাদ সম্মেলন

এ কে আজাদ, কপিলমুনি (খুলনা) প্রতিনিধিঃ

কপিলমুনি হানাদার মুক্ত দিবসের অনুষ্ঠানে প্রচারণার সময় অনিচ্ছাকৃত ও অসাবধানবশত একটি শব্দকে কেন্দ্র করে স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্রের বিরোধিতা ও নানা প্রপাগাণ্ডা, কুৎসা, ষড়যন্ত্র সর্বোপরি কালিমা লেপনের চেষ্টার প্রতিবাদে কপিলমুনি প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে প্রতিবাদ জানিয়েছে যুবলীগ নেতা আব্দুর রাজ্জাক রাজু।

সোমবার বেলা ১১ টায় কপিলমুনি প্রেসক্লাব মিলনায়তনে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ৯ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক কপিলমুনি হানাদার মুক্ত দিবসের আলোচনানুষ্ঠানের নির্দিষ্ট সময়ের পুর্বে প্রচারণার সময় আমার প্রচারিত বক্তব্যে অসাবধানতাবশত একটি শব্দ মুখ থেকে বেরিয়ে যায়।

শব্দটি হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে জাতীকে কলঙ্ক যুক্ত করেছিল এর স্থলে মুক্ত হয়েছিল বলা হয়েছিল। এখানে যুক্ত শব্দটির পরিবর্তে মুক্ত শব্দটি মুখনিঃসৃত হওয়ায় আমি মর্মাহত ও ব্যাথিত হয়েছি। এমনকি মুখনিঃসৃত এই শব্দটি প্রকাশে আমাকে ভীষণ  কাঁদিয়েছে। সে কারনে এই অনাকাঙ্ক্ষিত শব্দ প্রকাশের জন্য দেশবাসীসহ এলাকার মানুষের কাছে আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

লিখিত বক্তব্যে আবেগজড়িত কণ্ঠে যুবলীগ নেতা রাজু বলেন, ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে বর্তমান যুবলীগের রাজনীতিতে দীর্ঘ ২৬ বছর আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিজেকে লালন করেছি। দেশনেত্রী শেখ হাসিনা আমার অহংকার আর যুবলীগ আমার স্বপ্ন সারথী।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে যুবলীগের রাজনীতি করতে যেয়ে একাধিকবার আমি জামায়াত শিবির ও স্বাধীনতা বিরোধী দ্বারা হামলা ও মামলার শিকার হয়েছি। আমি দলের দুঃসময়ে রাজপথ ছাড়িনি কখনও। এখনও দলকে আকড়ে ধরে পথ চলছি।

তিনি তার এই অনাকাঙ্ক্ষিত ভুলটাকে সবাই ক্ষমা করে দিবেন বলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দাবী জানান।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন আ’লীগ নেতা আলহাজ্ব শেখ রফিকুল ইসলাম, কপিলমুনি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আজমল হোসেন বাবু, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান প্রীতিশ কুমার মন্ডল সহ স্থানীয় যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ

ফেসবুকে দৈনিক তথ্য