আজ বৃহস্পতিবার, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ ইং, ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আবারো কন্যা সন্তানের বাবা হলেন সাকিব

চারদিকে করোনা আতঙ্কের মধ্যে সুখবর দিলেন সাকিব আল হাসান। দ্বিতীয় বারের মতো কন্যা সন্তানের বাবা হয়েছেন জাতীয় দলের এ তারকা ক্রিকেটার।

শুক্রবার (সন্ধ্যা) সময় সংবাদকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাকিব আল হাসানের ব্যক্তিগত ম্যানেজার রাব্বি আমিন সোহান।
কিছুদিন আগে সাকিব তার ফেসবুকে জানিয়েছেন, ছোট ভাই অথবা বোন পেতে যাচ্ছেন তার কন্যা আলায়না হাসান অব্রি।
নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে আলায়নার একটি ছবি পোস্ট করে সাকিব লিখেছিলেন ‘বড় বোনের দায়িত্ব’। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, অব্রির হাতে একটি ছোট বাচ্চার জামা। তাতে লেখা, ‘বাসায় স্বাগতম।’
এবার জানা গেল তার দ্বিতীয়বারের মতো বাবা হওয়ার খবর।
জানা গেছে, বর্তমানে পরিবারসহ যুক্তরাষ্ট্রে আছেন সাকিব আল হাসান।
২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী উম্মে আহমেদ শিশিরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ঢাকার হোটেল রূপসী বাংলা’য় তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। যেখানে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের বিভিন্ন খেলোয়াড় উপস্থিত ছিলেন।
২০১৫ সালের ৮ নভেম্বর শিশিরের কোলজুড়ে আসে সে প্রথম সন্তান  আলাইনা হাসান অব্রি।
বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ‘পোস্টার বয়’ সাকিব আল হাসান। কিছুদিন আগেই ৩৩ তম জন্মদিন পালন করেছেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।
১৯৮৭ সালের ২৪ মার্চ মাগুরা জেলায় জন্মগ্রহণ করা সাকিবের ২০০৬ সালে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামার মধ্য দিয়ে লাল-সবুজের জার্সি গায়ে আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ক্রিকেটে অভিষেক হয়।
২০০৯ সালে একমাত্র বাংলাদেশি অলরাউন্ডার হিসেবে ওয়ানডে অলরাউন্ডার র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে উঠে আসেন। এরপর টেস্টেও সেরা অলরাউন্ডারের আসন দখল করেন। ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ক্রিকেটের তিন বিভাগের সেরা অলরাউন্ডার হন।
পরিসংখ্যান বলছে, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান।
তবে গত বছরের অক্টোবরের শেষে বাংলাদেশসহ বিশ্ব ক্রিকেট বড় এক ধাক্কা খায়। সাকিব আল হাসানকে সবধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) । জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করায় এই শাস্তি দেওয়া হয় তাকে। তবে দুই বছরের মধ্যে এক বছর পুরোপুরি নিষিদ্ধ, আর বাকি এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা অর্থাৎ খেলতে পারবেন কিন্তু আবারও অপরাধ করলে শাস্তি পেতে হবে। অভিযোগ মেনে নেওয়ায় ২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে ফের মাঠে ফিরতে পারবেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।
এখন পর্যন্ত ৫৬ টেস্টের ১০৫ ইনিংসে ব্যাট হাতে ৩৯.৪০ গড়ে ৩৮৬২ রান করেছেন সাকিব আল হাসান। এরমধ্যে পাঁচটি সেঞ্চুরির পাশাপাশি আছে ২৪টি হাফসেঞ্চুরি। সাদা পোশাকে তার সর্বোচ্চ ইনিংস ২১৭। টেস্টে ৯৫ ইনিংসে বল করে পেয়েছেন ২১০টি উইকেট। বোলিং গড় ৩১.১২। ১০ উইকেট পাওয়ার কীর্তি আছে দু’বার। আর ৫ উইকেট পেয়েছেন ১৮ বার।
সাকিবের ওয়ানডে ক্যারিয়ার আরো সমৃদ্ধ। ২০৬ ম্যাচ খেলা সাকিব ব্যাট করেছেন ১৯৪ ইনিংসে। ৩৭.৮৬ গড়ে করেছেন ৬৩২৩ রান। যেখানে ৯টি সেঞ্চুরি এবং ৪৭টি হাফসেঞ্চুরি আছে তার নামের পাশে। সর্বোচ্চ ইনিংস অপরাজিত ১৩৪। আর ২০৩ ইনিংসে বল হাতে ৩০.২১ গড় ও ৪.৪৮ ইকোনোমিতে নিয়েছেন ২৬০টি উইকেট। ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়েছেন দু’বার।
৭৬টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন সাকিব। ১২৩.৭৭ স্ট্রাইক রেটে করেছেন ১৫৬৭ রান। রয়েছে ৯টি হাফসেঞ্চুরি। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ৭৫ ইনিংসে বল করে নিয়েছেন ৯২ উইকেট। ইকোনোমি ৬.৮১।
ভাল লাগলে শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

     এই বিষয়ের আরো সংবাদ

ফেসবুকে দৈনিক তথ্য