২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার,রাত ২:২৭

অবৈধ পথে আসা ভারতীয় নাগরিককে মামলার আওতায় না এনে কোয়ারেন্টাইনে রাখা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

প্রকাশিত: মে ২১, ২০২১

  • শেয়ার করুন

বেনাপোল(অফিস )

অবৈধপথে ভারতীয় নাগরিক সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এরপর সে বেনাপোল পোর্ট থানার পোড়াবাড়ী নারায়ণপুর গ্রামে তার স্ত্রীর বাড়িতে উঠে। এমন খবরে তোলপাড় হয় এলাকায়। পরে পুলিশ এসে ওই লোককে কোয়ারেন্টিনে পাঠায় ও সে যে বাড়িতে অবস্থান নিয়েছিল সে বাড়ি লকডাউন করে দেয়। তবে প্রশ্ন উঠেছে ভারতীয় ওই নাগরিককে মামলার আওতায় না এনে কেন হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হলো ?

জানা যায়, পোড়াবাড়ী নারায়ণপুর গ্রামে ভারত থেকে এসে একজন লোক চায়ের দোকানি হাসিনার বাড়িতে উঠেছেন। করোনা আতঙ্কে রয়েছে এলাকাবাসী। হাসিনা বেগমের বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, তার স্বামী বাদশা শেখ একজন ভারতীয় নাগরিক। তার পিতার নাম মৃত আনোয়ার শেখ।

হাসিনা বেগম জানান, বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে তার স্বামী সীমান্ত পার হয়ে তার বাড়িতে এসেছেন। বাড়িতে প্রবেশ করতে দিতে না চাইলে তার স্বামী বাদশা লস্কর আত্মহত্যা করবে বলে জানালে তাকে একটি রুমে রাখা হয়েছে।

চায়ের দোকানির প্রতিবেশী মিনারুল ইসলাম মিন্নু জানান, ভারতে করোনাভাইরাসের প্রকোপে হয়তো তিনি সেখান থেকে ভয়ে বাংলাদেশে চলে এসেছেন। তা ছাড়া কোনো ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই তাকে গ্রামে রাখা সম্ভব না। এ ছাড়া তিনি অসুস্থ বলে মনে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য মেয়াদ আলী জানান, ভারত থেকে আগত একজন ভারতীয় নাগরিকের বিষয়টি আমি লোকমুখে শুনেছি। সে নাকি ভারতের মহারাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে অবৈধভাবে আমার গ্রামে এসেছে। আমি বিষয়টি বেনাপোল পোর্ট থানায় অবহিত করেছি।

বেনাপোল পোর্ট থানার এসআই মাসুম বিল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এলাকার লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে বিকেলে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই ব্যক্তিকে বিশেষ ব্যবস্থায় নিয়ে এসে চেকপোস্টের জুয়েল হোটেলে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে হাসিনা বেগমের বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • শেয়ার করুন